হোম » অনুপ্রেরণীয় » মস্তিষ্কের অসাধারণতা ও শিক্ষার বহুমাত্রিকতা

মস্তিষ্কের অসাধারণতা ও শিক্ষার বহুমাত্রিকতা

মানব মস্তিষ্কে দশ হাজার কোটি নিউরন রয়েছে, এবং এই নিউরনগুলোর কার্যক্রম ভিন্ন ভিন্ন ক্ষেত্রে প্রভাব বিস্তার করে। এ কারণেই পৃথিবী এত বৈচিত্র্যময়। সাধারণ কোনো কাজে খারাপ করা মানেই আমি খারাপ নই, বরং বলা যায় আমি হয়তো অন্য কোনো ক্ষেত্রে অসাধারণ। আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে যাতে সবার জন্য কিছু না কিছু থাকে। এটি একটি সাধারণ শিক্ষাক্রম যা সকলের জন্য উপযোগী। এখানে খারাপ করার মানে এই নয় যে আমি খারাপ ছাত্র বা ছাত্রী, বরং এর মানে হতে পারে আমি সাধারণ শিক্ষাক্রম থেকে ভিন্ন এবং হয়তো বিশেষ কেউ।

শিক্ষার মূল্যায়ন ও ব্যর্থতার গুরুত্ব

যারা সব সময় পাস করে, তারা পাস করার আনন্দ বুঝতে পারে না। তাদের জন্য এটি স্বাভাবিক ঘটনা। কিন্তু যারা বারবার ব্যর্থ হওয়ার পর একবার পাস করে, তারাই পাসের প্রকৃত আনন্দ অনুভব করতে পারে। এই আনন্দ কত বিশাল হতে পারে, তা একমাত্র তারাই জানে।

যারা ফেল করে, তারা নিজেদের মধ্যে হীনমন্যতায় ভুগে। এর সাথে যুক্ত হয় পরিপাশ্বের বকা চোখ বা তিরষ্কার। তখন কেউ তাদের বোঝার চেষ্টা করে না। অথচ তখন তাদের প্রয়োজন হয় একটু অনুপ্রেরণা, একটু আশা, আর একটু সান্ত্বনা। শিক্ষাক্ষেত্রে বা কোনো কাজে খারাপ করা মানে এই নয় যে আমার দ্বারা কিছু হবে না। আমি একটি বিষয়ে আগ্রহ পাই না মানে এই নয় যে আমি সব বিষয়েই অনাগ্রহ দেখাবো। হয়তো আমি এখনো আমার পছন্দের বিষয় খুঁজে পাইনি। চারপাশের কোনো কিছুই আমার মন কাড়তে পারেনি। এর মানে এই যে, আমাকে আরও কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে, দারুণ কিছু করার জন্য।

ব্যর্থতার মানে নতুন সুযোগ

আমরা পরাজয়কে মেনে নিতে পারি না, একটুও না। পরাজয় আমাদের কষ্ট দেয়। আমরা শুধু একটু সুযোগের অপেক্ষায় রয়েছি, ভালো কিছু করার সুযোগ। বসে নেই, খুঁজে চলছি, এবং পাবোই পাবো। কারণ পৃথিবী বদলে দেওয়া সেরা মানুষগুলো আমাদের দলেই। তারা বারবার হেরে গিয়ে জয় করেছে এই বিশ্ব, এই মহাবিশ্ব।

ব্যর্থতা থেকে শেখার গুরুত্ব

আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা প্রায়ই ব্যর্থতাকে নেতিবাচক হিসেবে দেখে, কিন্তু ব্যর্থতা হতে পারে শেখার একটি মূল্যবান অভিজ্ঞতা। ব্যর্থতা আমাদের দুর্বলতাগুলো চিহ্নিত করতে সহায়তা করে এবং পরবর্তী সময়ে আমাদের সাফল্যের পথে এগিয়ে নিয়ে যায়। একজন ব্যক্তি যখন বারবার চেষ্টা করে এবং শেষে সফল হয়, তখন সে তার পথচলায় অনেক কিছু শিখতে পারে, যা তাকে আরো শক্তিশালী করে তোলে।

সফলতার সংজ্ঞা পরিবর্তন

আমরা সফলতার সংজ্ঞা পরিবর্তন করতে পারি। কেবলমাত্র পরীক্ষায় ভালো ফলাফল করাই সফলতা নয়, বরং বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করাও সফলতার অংশ। অনেক সময়, আমরা এমন কিছু করতে চাই যা প্রচলিত শিক্ষার বাইরে, এবং সেটিই হতে পারে আমাদের প্রকৃত আগ্রহের ক্ষেত্র। আমাদের উচিত সেই ক্ষেত্রগুলো খুঁজে বের করা এবং সেগুলোতে উন্নতি করা।

সমাজের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন

সমাজেরও আমাদের প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করা উচিত। প্রত্যেকেরই আলাদা আলাদা দক্ষতা রয়েছে এবং সকলেরই আলাদা আলাদা ক্ষেত্রে সফল হওয়ার ক্ষমতা রয়েছে। কেউ হয়তো বিজ্ঞান বা গণিতে পারদর্শী, আবার কেউ হয়তো শিল্পকলা বা খেলাধুলায় পারদর্শী। আমাদের উচিত সকল ক্ষেত্রেই দক্ষতাকে মূল্যায়ন করা এবং সকলকে সমানভাবে উৎসাহিত করা।

প্রতিভার অন্বেষণ

কিছু লোক সহজেই তাদের প্রতিভা খুঁজে পায়, আবার কেউ কেউ অনেক সময় নিয়ে তা আবিষ্কার করে। এটি একেবারে স্বাভাবিক। আমাদের উচিত ধৈর্য ধরে নিজেদের প্রতিভা খুঁজে বের করা এবং তা বিকশিত করা। আমরা যদি নিজের প্রতিভা আবিষ্কার করতে পারি এবং তা অনুযায়ী কাজ করতে পারি, তাহলে আমরা নিশ্চিতভাবে সফল হবো।

শেষকথা

সুতরাং, আমাদের উচিত নিজেদের সক্ষমতা এবং দুর্বলতাগুলো চিনতে পারা এবং সেই অনুযায়ী কাজ করা। ব্যর্থতা থেকে শেখা এবং তা আমাদের উন্নতির পথে কাজে লাগানো। সফলতা কেবলমাত্র পরীক্ষার ফলাফল নয়, বরং জীবনের বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জনও সফলতার অংশ। সমাজের দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন এবং প্রতিভার সঠিক মূল্যায়ন আমাদের শিক্ষাব্যবস্থাকে আরো কার্যকর এবং সমৃদ্ধ করবে। এইভাবে আমরা আমাদের জীবনে দারুণ কিছু করতে সক্ষম হবো।

Leave a Comment