Header Ads

খাবার যেগুলো খালিপেটে খাবেন আর যা এড়িয়ে যাবেন

খাদ্য হল আমাদের জীবনের অন্যতম একটি মৌলিক ও প্রয়োজনীয় উপাদান। সার্বিকভাবে ভালো থাকতে হলে আমাদের খাবার খেতেই হবে। খাবার স্বাস্থ্যকর হলেও আমরা ভুল করে সঠিক সময়ে খাবার খাইনা। কিন্তু স্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়ার পাশাপাশি হজম ক্ষমতা বাড়ানো এবং শরীরে অত্যাবশ্যকীয় পুষ্টি উপাদানের শোষণের জন্য সঠিক সময়ে খাবার খাওয়া খুবই জরুরী। সারারাত উপোষ থেকে প্রাতরাশে খালি পেটে কিছু খাবার খাওয়া একদম উচিত না। আজ আমরা জানব খালি পেটে যেসব খাবার খাওয়া উচিত ও পরিহার করা উচিত সে বিষয়ে বিস্তারিত।

খালি পেটে যে সমস্ত খাবার খাওয়া উচিত নয় 

১। মিষ্টি ও মিষ্টি জাতীয় খাবার 


মিষ্টি খেতে সবার পছন্দ হলেও সকালে খালি পেটে মিষ্টি খাওয়া উচিত নয়। খালি পেটে মিষ্টি খেলে তা শরীরে হঠাৎ শর্করার পরিমাণ বেড়ে গিয়ে দেহ থেকে অতিরিক্ত ইনসুলিন নিঃসরণ মাত্রাকে বাড়িয়ে দেয়, যার ফলে অগ্ন্যাশয়ের উপর চাপ পড়ে যার ফলে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বেড়ে যায়।

২। ইস্ট যুক্ত পেস্ট্রি বা অন্যান্য খাবার

সকালে ঘুম থেকে উঠে খালিপেটে পেস্ট্রি বা প্যাটিস জাতীয় খাবার অর্থাৎ যে সমস্ত খাবারে ইস্ট আছে খালি পেটে সেগুলো না খাওয়া উচিত। এই খাবারগুলি শরীরে ইস্টের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় যা পরবর্তিতে শরীরে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাকেও আরও বাড়িয়ে তুলতে পারে। 

৩। কলা

কলায় প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেসিয়াম ও অন্যান্য নানা মিনারেল থাকে। তাই কলা খাওয়া খুবই উপকারী হলেও খালি পেটে কলা খেলে কিছু মারাত্মক সমস্যা হতে পারে। যদি কেউ খালি পেটে কলা তাহলে তাঁর রক্তে মিনারেলসের মাত্রা বেড়ে যায় ফলে হার্টের নানা সমস্যা তৈরি হতে পারে।

৪। টকজাতীয় ফল

খালি পেটে আমলকী, করমচা, তেঁতুল টকজাতীয় ফল খাওয়া উচিত নয় কারণ এসব ফলে প্রচুর অ্যাসিড থাকে। খালি পেটে এসব ফল খেলে পেট ও বুক জ্বালাপোড়া করে এবং গ্যাস্ট্রিকের সৃষ্টি হতে পারে।

৫। টমেটো

টমেটো সালাড বানিয়ে যত খুশি খাওয়া যেতে পারে কিন্তু খালিপেটে টমেটো খেলে শরীরের অনেক ক্ষতি হতে পারে। টমেটোতে প্রচুর পরিমাণে ট্যানিক অ্যাসিড থাকায় খালি পেটে টমেটো খেলে অ্যাসিডিটি হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যায়।

৬। শসা

ভরা পেটে। শশা খাওয়া শরীরের পক্ষে ভালো হলে খালি পেটে খেলে তা শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এতে প্রচুর পরিমাণ অ্যামাইনো অ্যাসিড থাকায় খালি পেটে খেলে তলপেটে ব্যথা হতে পারে।

৭। নাশপাতি

খালি পেটে নাশপাতি খেলে এর ফাইবার শরীরের মিউকাস মেমব্রেনের ক্ষতি করতে পারে। তাই খালি পেটে নাশপাতি খাওয়া উচিত নয়।

৮। কমলালেবুর মতো সাইট্রাস ফল

কমলা লেবু বা অন্যান্য সাইট্রাস ফল যেমন লেবু, জাম্বুরা ইত্যাদিতে প্রচুর অ্যাসিড থাকে। তাই সকালে উঠেই এইসমস্ত ফল বা ফলের রস খাওয়া উচিত নয়।খালিপেটে এসব সাইট্রাস ফল খেলে গ্যাস্ট্রিক আলসারের মতো গুরুতর সমস্যা হতে পারে।

৯। দই বা অন্যান্য ফারমেন্টেড খাবার

খালি পেটে দই বা ওই জাতীয় বিভিন্ন ফারমেন্টেড খাবার খেলে তা পেটে গিয়ে হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড তৈরি করে। এর ফলে অন্ত্রে থাকা উপকারী ল্যাক্টিক অ্যাসিড ব্যাকটেরিয়া মরে যায় যা শরীরের সামগ্রিক ব্যাকটেরিয়াল সিস্টেমকে ক্ষতিগ্রস্ত করে, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস পায় এবং শরীর হয়ে পড়ে দুর্বল।

১০। কোল্ডড্রিঙ্কস

এমনিতেই কোল্ডড্রিঙ্কস খাওয়া শরীরের জন্য ভালো নয় এরপর খালিপেটে এসব খেলে তাতে থাকা কার্বন-ডাই-অক্সাইড পেটের মিউকাস মেমব্রেনকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। এছাড়া এসব ড্রিঙ্কস পাকস্থলীতে রক্ত সঞ্চালনও কমিয়ে দেয় যার ফলে খাবার হজম হতে দেরী হয় ও হজমের নানা সমস্যা হতে পারে।

যে সমস্ত খাবার খালি পেটে খাওয়া যেতে পারে

১। ডিম 

সকাল বেলায় ঘুম থেকে উঠে ডিম খেলে অনেকক্ষণ পেট ভরা থাকে। এছাড়া প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় ক্যালোরির যোগানও হয়ে থাকে এর মাধ্যমে।

২। খেজুর

দিনের শুরুতে খেজুর খেতে পারলে তা শরীরে দ্রুত শক্তি জোগান দিতে পারে। খেজুরে প্রচুর পরিমানে দ্রবণীয় আঁশ থাকায় তা হজম প্রক্রিয়ার জন্য ভালো। কোষ্ঠকাঠিন্য ও পেটের সমস্যা দূর করতে নিয়মিত খেজুর খাওয়া যেতে পারে। এছাড়া খেজুর রক্তপ্রবাহে গতি সঞ্চার করে হৃৎপিণ্ডের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধিতেও কার্যকরী ভুমিকা রাখে। খেজুরে প্রচুর পরিমাণ ক্যালসিয়াম থাকায় হাড়কে মজবুত রাখতে সহায়তা করে।

৩। মধু

প্রতিদিন সকালে মধু খেলে মস্তিষ্কের কার্যকলাপ বৃদ্ধি করার সাথে সাথে সেরোটোনিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়, যা শরীরকে বল, শক্তি এবং এনার্জি দেয়।  সকালে খালি পেটে হালকা গরম পানিতে লেবুর রস ও মধু মিশিয়ে খেলে তা ওজন কমাতে সাহায্য করে। মধুতে আছে প্রচুর পরিমাণে খনিজ, ভিটামিন ও এনজাইম, যা শরীরকে বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা করে। এ ছাড়া প্রতিদিন সকালে এক চামচ মধু খেলে ঠান্ডা, কফ, কাশি ইত্যাদি সমস্যা কমে যায়।

৫। ওটমিল

নিয়মিত সকালে ওটমিল খেলে তা হাইড্রোলিক অ্যাসিডের হাত থেকে পাকস্থলীর আবরণকে সুরক্ষিত রাখতে সহায়তা করে। এছাড়া এর মধ্যে দ্রবণীয় ফাইবার থাকায় কোলেস্টেরল কমানোর জন্য ভুমিকা রাখে। এর মধ্যে আয়রন, ভিটামিন এবং প্রোটিন থাকায় পরিপাকতন্ত্রের উন্নতি ঘটায়। এছাড়া ওটমিল শরীর থেকে টক্সিন বের করে দিয়ে অনেকক্ষণ পেট ভরিয়ে রাখতেও সহায়তা করে।

৬। বাদাম

প্রাতরাশে বাদাম সবসময় চলতে পারে। এটা হজমের উন্নতির সাথে পাকস্থলীর অম্লতার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। কাঠবাদামের বাদামি আবরণে ট্যানিন নামের উপাদান থাকে যা পুষ্টি শোষণ করে। তাই দীর্ঘক্ষণ না খেয়ে থাকার পর ভিটামিন ও খনিজে ভরা কাঠবাদাম খেলে তা পুষ্টি জোগানোর পাশাপাশি সারা দিন রুচি বাড়াতেও সহায়তা করবে।

৭। তরমুজ

তরমুজে ক্যালরি কম, কিন্তু ইলেকট্রোলাইটস বেশি।এতাই খালি পেটে তরমুজ খাওয়া যেতে পারে। প্রতিদিন দুই কাপের মতো তরমুজ খেলে শরীরে ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সির চাহিদা পূরণ হয়। এতে থাকা পটাশিয়াম শরীরে ফ্লুইড ও মিনারেলসের মধ্যে ভারসাম্য বজায় রাখতেও ভুমিকা রাখে। এর মধ্যে পাওয়া যায় লাইকোপেন যা চোখ এবং হৃৎপিণ্ডের জন্য অনেক ভালো।

এতক্ষণ আমরা জেনে নিলাম সকালে উঠে খালি পেটে কি কি খাওয়া যায় আর কি কি খাওয়া যায় না। তাই এবার মানার পালা। সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর ভীষণ খিদে পায়। তাই বলে কোনো কিছু বাছবিচার না করেই বাসায় যা আছে তা খাওয়া যাবেনা। নানা রকম স্বাস্থ্য সমস্যা থেকে রেহাই পেতে আসুন জেনে নেই খালি পেটে যেসব খাবারগুলো পরিহার করতে হবে। আর সঠিক খাদ্যাভ্যাস মেনে জীবনকে করি আরও সুন্দর ও স্বাস্থ্যকর।